Friday , April 3 2020
Home / বাংলা বিভাগ / খবর / যে কারণে প্লাস্টিক পুনর্ব্যবহারে পিছিয়ে বাংলাদেশ
ad
যে কারণে প্লাস্টিক পুনর্ব্যবহারে পিছিয়ে বাংলাদেশ
Plastic bags and bottles clogs the Amarnath cave in Kashmir where Hindu devotees goto worship a representation of the God Shiva. Credit. Athar Parvaiz-IPS

যে কারণে প্লাস্টিক পুনর্ব্যবহারে পিছিয়ে বাংলাদেশ

বিশ্ব পরিবেশ দিবসে জাতিসংঘের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে উঠে আসে যে বিশ্বে এযাবতকালে উৎপাদিত হওয়া ৯ বিলিয়ন টন প্লাস্টিকের ১০ ভাগেরও কম পুনর্ব্যবহারের জন্য প্রক্রিয়াজাত করা হয়েছে। তবে বাংলাদেশে সেই হার আরও কম।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক হাফিজা খাতুন মনে করেন, প্লাস্টিক পুনর্ব্যবহারের ক্ষেত্রে তাৎক্ষণিকভাবে পুরস্কৃত হওয়ার সুযোগ না থাকায় বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ প্লাস্টিক পুনর্ব্যবহারে আগ্রহী হয় না।
হাফিজা খাতুন বলেন, “কোনো কাজ করে যখন রিটার্ন বা প্রতিদান পায় মানুষ তখন সেই কাজের প্রতি আগ্রহী হয়। সেটি বৈষয়িক ফায়দা হতে পারে অথবা আত্মিক শান্তিও হতে পারে।”
বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে প্লাস্টিক রিসাইক্লিং বা পুনর্ব্যবহারের প্রতি জোর দেয়া হলেও বাংলাদেশে এই কার্যক্রম সীমিত আকারে পরিচালিত হয়।
মিজ হাফিজা খাতুন বলেন মূলত পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে বাংলাদেশে বৃহৎ আকারে প্লাস্টিক রিসাইক্লিং হচ্ছে না।
মিজ হাফিজা খাতুন বলেন, “বাংলাদেশে এর কোনো পৃষ্ঠপোষকতা ও স্বীকৃতি নেই। এছাড়া পুনর্ব্যবহৃত প্লাস্টিক বাজারজাতকরণ ও বিক্রয় সম্পর্কিত সুনির্দিষ্ট আনুষ্ঠানিক ব্যবস্থাপনা ও এগুলো সাধারণ মানুষের ব্যবহারের জন্য সুযোগ করে দিলে প্লাস্টিকের পুনর্ব্যবহারের রীতি তৈরি হবে।”
মিজ খাতুনের মতে, প্লাস্টিক বা পলিথিন ব্যাগ নিষিদ্ধ করে দেয়া এই সমস্যার সমাধান নয়।
“পলিথিন ব্যাগ যখন আমার বা আপনার প্রয়োজন হবে তখন আমরা ঠিকই ব্যবহার করবো। কাজেই পলিথিন নিষিদ্ধ করা সমাধান নয়। পলিথিনকে ব্যবহারের উপযোগী করা ও পরবর্তীতে রিসাইক্লিংয়ের ব্যবস্থা করার উচিত।”
মিজ খাতুন মনে করেন, এই ক্ষেত্রে সমন্বয়হীনতার দায় সরকারের নীতিনির্ধারকদের ওপর বর্তায়।
“নীতিনির্ধারকদের অদূরদর্শী চিন্তাভাবনার কারণে এসব সমস্যা তৈরী হচ্ছে। আর সরকারের নীতিতে পরিবর্তন হলেও সরকারের হাতে অন্য কোনো উপায় বা সুযোগও নেই যার মাধ্যমে এই নীতি বাস্তবায়ন করা সম্ভব।”
তবে শুধু সরকারি বা ব্যবসায়িক দৃষ্টিকোণ থেকে এই সমস্যা বিচার না করে ব্যক্তিপর্যায়ে সচেতনতা বৃদ্ধির দিকেও জোর দেন মিজ হাফিজা খাতুন। – বিবিসি বাংলা

adadad