News update
  • Rising violence behind Palestinian and Israeli casualties     |     
  • 'Dev communication expedites industrialization, boosts business'     |     
  • Shariatpur fish traders see huge prospects as Padma Bridge opens     |     
  • 12 judges test Covid-19 positive     |     
  • Dhaka's air quality turns 'good'     |     

জয়পুরহাটে সংস্কৃতিসেবী ও সংগঠনের মধ্যে আর্থিক সহায়তা প্রদান

গ্রীণওয়াচ ডেস্ক সংগঠন সংবাদ 2022-06-06, 10:25am

image-44957-1654489348-502eb613a3b75694869b116f63ef84aa1654489527.jpg




সরকারের পক্ষ থেকে জেলা পর্যায়ে বসবাস করা অসচ্ছল সংস্কৃতিসেবীদের মাসিক কল্যাণ ভাতা ও সাংস্কৃতিক সংগঠনকে এককালীণ আর্থিক মঞ্জুরী হিসাবে ২০২০-২০২১ অর্থবছরে ২০ লাখ ৪৪ হাজার টাকা প্রদান করা হয়েছে।  

জয়পুরহাট শিল্পকলা একাডেমি সূত্র বাসস’কে জানায়, ২০২০-২০২১ অর্থবছরে জেলা পর্যায়ে বসবাস করা অসচ্ছল সংস্কৃতিসেবীদের সম্মান জানানোর জন্য সরকার বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মাধ্যমে জেলার পাঁচ উপজেলার ৭৮ জন সংস্কৃতিসেবীকে মাসিক কল্যাণ ভাতা হিসাবে ১১ লাখ ৪ হাজার টাকা ও ৩১টি সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানের  জন্য এককালীন অনুদান হিসাবে ৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা বরাদ্দ প্রদান করে। 

অসচ্ছল সংস্কৃতিসেবীরা যাতে সরাসরি এই সুবিধা পেতে পারেন সে জন্য মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ওই ভাতার টাকা পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান, জয়পুরহাট শিল্পকলা একাডেমির দায়িত্বপ্রাপ্ত কালচারাল অফিসার মাহাতাব উদ্দিন। তিনি জানান, অসচ্ছল সংস্কৃতিসেবীদের জন্য মাসিক কল্যাণ ভাতা প্রদান বর্তমান জনবান্ধব সরকারের একটি মহৎ উদ্যোগ। জেলায় প্রথম পর্যায়ে ৭৪ জন অসচ্ছল সংস্কৃতিসেবী মাসিক কল্যাণ ভাতা ভুক্ত হলেও  দ্বিতীয় পর্যায়ে আরও ৪ জনকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ২০২০-২০২১ অর্থবছরে জেলায় বর্তমানে ৭৮ জনকে সরকারের বরাদ্দকৃত মাসিক কল্যাণ ভাতা হিসাবে ১১ লাখ ৪ হাজার টাকা প্রদান করা হয়েছে।  এ ছাড়াও সুষ্ঠুভাবে সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য ৩১টি সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানকে মঞ্জুরী বাবদ ৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা অনুদান প্রদান করা হয়েছে।  

জেলা পর্যায়ে সাংস্কৃতিসেবীদের কল্যাণ ভাতা প্রদান ও সমাজে আলোকিত মানুষ তৈরির জন্য সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান গুলোকে এককারীণ অনুদান প্রদান সরকারের একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ বলে জানান, জাতীয় রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদ জয়পুরহাট শাখার সভাপতি আমিনুল হক বাবুল। অনুদান প্রাপ্ত সংগঠনগুলো কি কার্যক্রম পরিচালনা করছে সে ব্যাপারেও খোঁজ কবর নেয়া দরকার বলেও তিনি উল্লেখ করেন।  তথ্য সূত্র বাসস।