জনসর্মথনহীন সরকারের র্ব্যথতায় দেশের র্সবত্র বির্পযয় চলছে

2021-10-23, 5:42pm error

iab-press-conf-98ddf9706fc65b009959d85c31519e371634989374.jpg

IAB Press Conf. Photo

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, জনসর্মথনহীন সরকারের র্ব্যথতায় দেশের র্সবত্র বির্পযয় চলছে। তিনি বলেন, হাজার বছর ধরে হিন্দু-মুসলমিরা এই ভূখন্ডে পাশাপাশি বসবাস করে আসছ।ে মানুষ যার যার র্ধম পালন করছ।ে কুমলিস্নার একটি মন্দরিে পবত্রি কুরআন পাওয়াকে কন্দ্রে করে এবং ফসেবুকে র্ধম অবমাননাকর স্ট্যাটাসকে ইস্যু করে দশেরে বভিন্নি জলোয় যে সব অনাকাঙ্খতি ঘটনা ঘটছে,ে আমরা এসব ঘটনার তীব্র নন্দিা জানাই এবং সুষ্ঠু তদšত্ম সাপড়্গেে দোষীদরে দ্রম্নত বচিার চাই। তনিি আরো বলনে, বাঙ্গালীর হাজার বছররে ইতহিাস এবং মুসলমানদরে র্ধমীয় শড়্গাি এ ধরণরে ঘটনাকে সর্মথন করে না। ঘটনার সূত্রপাত থকেে পরর্বতী প্রত্যকেটি ঘটনায় প্রশাসনরে র্ব্যথতার ছাপ স্পষ্ট। ৫০ বছররে অভজ্ঞিতাসম্পন্ন একটি আইনশৃঙ্খলা বাহনিীর কাছ থকেে এ ধরণরে র্ব্যথতা কল্পনাতীত। জন প্রশাসনে অতমিাত্রায় রাজনীতি প্রবশেরে কারণে সামগ্রকিভাবে দশেরে প্রশাসন ব্যবস্থায় এক ধরণরে অদড়্গতা তরৈি হয়ছে।ে যার খসোরত এসব ঘটনা। ৩তনিি বলনে, কুমলিস্নার ঘটনার পরে জনরোষ তরৈি হওয়া খুবই স্বাভাবকি। সইে রোষে মানুষ বড়্গািভে করবে তাও স্বাভাবকি। বসোমরকি বাহনিীগুলোকে এই ধরণরে গণবড়্গািভে নয়িন্ত্রণে প্রশড়্গতিি করার কথা। ৫০ বছররে স্বাধীন একটি দশেরে বসোমরকি বাহনিী গণবড়্গািভে দমনে গুলি করার মতো চরম সদ্ধিাšত্ম সহজইে নয়িে নচ্ছি।ে যার প্রতফিলন নকিট অততিে ভোলায়, হাটহাজরীতে ও ব-িবাড়য়িায় দখো গছে।ে চাঁদপুরওে আইন শৃঙ্খলা বাহনিী একই রকমভাবে চরমপন্থা অবলম্বন করে বড়্গািভে দমন করতে গয়িে অšত্মত পাঁচজনকে মৃত্যুর মুখে ঠলেে দয়িছে।ে আইনশৃঙ্খলা বাহনিীগুলোর অল্পতইে এমন চরমপন্থা গ্রহণ করার প্রবণতা জন স্বাধীনতা, নাগরকি বোধ ও সভ্যতার জন্য ভয়ের কারণ। কুমিল্লার ঘটনা নয়িে প্রতবিশেী দশেরে একশ্রণেীর মডিয়িা, সরকারী দলরে রাজনতৈকি নতেৃত্ব ও সুশীল সমাজ যে প্রতক্রিয়িা দখেয়িছেে তা আধুনকি জাতি রাষ্ট্ররে সব ধরণরে নীত-িনতৈকিতা ছাড়য়িে গছে।ে তাদরে এই ধরণরে আগবাড়ানো প্রতক্রিয়িালশীলতায় এই ঘটনার অšত্মরালে আšর্ত্মজাতকি রাজনীতরি নোংরা কৌশলরে আভাস পাওয়া যায়। কুমলিস্নার ঘটনার পরে বাংলাদশেরে এক শ্রণেীর মডিয়িা, রাজনতৈকি সংগঠন ও সুশীল সমাজ যভোবে ঘটনাকে কবেলমাত্র সাম্প্রদায়কিতা দয়িে ব্যাখ্যা করছে,ে তা হতাশাজনক।

আজ বুধবার দশেরে চলমান সঙ্কটময় পরস্থিতিরি প্রড়্গেেতি অনুষ্ঠতি সংবাদ সম্মলেনে লখিতি বক্তব্যে তনিি এসব কথা বলনে। এ সময় উপস্থতি ছলিনে যুগ্ম মহাসচবি মাওলানা গাজী আতাউর রহমানরে সঞ্চালনায় অনুষ্ঠতি সংবাদ সম্মলেনে উপস্থতি ছলিনে দলরে প্রসেডিয়িাম সদস্য অধ্যড়্গ মাওলানা সয়ৈদ মোসাদ্দকে বলিস্নাহ আল-মাদানী, মহাসচবি অধ্যড়্গ হাফজে মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, প্রসেডিয়িাম সদস্য আলহজ্ব খন্দকার গোলাম মাওলা, অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, যুগ্ম মহাসচবি আলহাজ্ব আমনুিল ইসলাম,  ইঞ্জনয়িার আশরাফুল আলম, সহকারি মহাসচবি মাওলানা আবদুল কাদরে, মাওলানা মুহাম্মদ ইমতয়িাজ আলম, কএেম আতকিুর রহমান, অধ্যাপক সয়ৈদ বলোয়তে হোসনে, মাওলানা আহমদ আবদুুল কাইয়ূম, মাওলানা খললিুর রহমান, উপাধ্যড়্গ সরিাজুল ইসলাম, মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা শখে ফজুলল করীম মারূফ, মাওলানা লোকমান হোসাইন জাফরী, মাওলানা নূরম্নল ইসলাম আল-আমীন, মুফতী হমোয়তেুলস্নাহ, মাওলানা দলোওয়ার হোসাইন সাকী, এড. লুৎফুর রহমান, এড. শওকত আলী হাওলাদার, আলহাজ্ব জান্নাতুল ইসলাম, আলহাজ্ব আব্দুর রহমান, আলহাজ্ব মনরি হোসনে, মাওলানা কফোয়তেুলস্নাহ কাশফী,  মুক্তযিোদ্ধা আবুল কাশমে, মাওলানা মকবুল হোসাইন, আলহাজ্ব সলেমি মাহমুদ প্রমুখ।

পীর সাহেব লিখিত বক্তব্যে বলেন, কুমিল্লার ঘটনায় একটি কুচক্রমিহল সংখ্যাগরষ্ঠিরে র্ধমকে অবমাননা করে ঘোলা পানতিে র্স্বাথ হাসলি করতে চায়। কারণ- ১.এই ধরণরে ঘটনার কখনোই সুষ্ঠু তদšত্ম করে অপরাধীদরে বচিাররে মুখোমুখি করা হয় না। প্রায় সকল ড়্গেেত্রই অনকে কথা হয়, আশ্বাসবাণী শোনানো হয় কন্তিু বচিার হয় না। বচিারহীনতার এই সংস্কৃতইি অপশক্তগিুলোকে বারংবার র্ধম অবমাননা করে উত্তজেনা তরৈরি কৌশল ব্যবহার করতে উৎসাহতি কর।ে ২. বাংলাদশেে র্ধম অবমাননা করার বরিম্নদ্ধে সুনর্দিষ্টি কোন আইন নাই। ফলে যে র্ধমরে অবমাননা করা হয় সইে র্ধমরে অনুসারীরা এক ধরণরে অসহায় বোধ কর।ে সইে অসহায় বোধ থকেইে তারা তৎড়্গণাৎ বড়্গািভে দখোনো এবং ড়্গত্রে বশিষেে সহংিস বড়্গািভে প্রর্দশনে উৎসাহতি হয়।৩. ড়্গমতাসীন রাজনতৈকি দলরে নতো ও মন্ত্রীরা প্রায় নয়িমতি বরিততিে ইসলামরে বরিম্নদ্ধে বষিোদগার করে থাকনে। সাম্প্রতকি একজন অপরণিামর্দশী প্রতমিন্ত্রীর বালখল্যিতা জাতি দখেছে।ে অপরপিক্ক সইে প্রতমিন্ত্রী যভোবে রাষ্ট্রর্ধম ইসলাম নয়িে মšত্মব্য করছেনে, তাতে জন-ড়্গাভে আরো বড়েছে।ে ৪. দশেে যখন একদলীয় শাসন চল,ে সরকার যখন বরিোধী রাজনতৈকি দলগুলোকে কোণঠাসা করে রাখে তখন অনয়িন্ত্রতি বড়্গািভে ছড়য়িে পড়া একটি র্পাশ্বপ্রতক্রিয়িা। কুমলিস্না ও দশেব্যাপী তারই বহঃিপ্রকাশ দখো গছে।ে ৫. রাষ্ট্ররে সরকার যখন স্বরৈাচারী ও শক্তি নর্ভির হয় তখন যকেোনো সামাজকি সমস্যার সমাধানে জনতার মাঝওে শক্তি নর্ভির পন্থার প্রাবল্য দখো দয়ে।

সংবাদ সম্মলেনে ১০ দফা প্র¯ত্মাব পশে করা হয় : ১.কুমলিস্নার ঘটনা ও তৎপরর্বতী ঘটনা তদšত্মে বচিার বভিাগীয় কমটিি করতে হব।ে এখানে কুমলিস্নায় কোরআন অবমাননা, বভিন্নি স্থানে মন্দরি ও র্মূতি ভাঙ্গা, রংপুরে আগুন দয়ো এবং চাঁদপুরে বড়্গািভেে গুলি করে হত্যা করার বষিয়টি পুঙ্খানু-পুঙ্খানু তদšত্ম করতে হবে  এবং সইে কমটিরি তদšত্ম রপর্িোট নর্দিষ্টি সময়রে মধ্যে জনসন্মুখে প্রকাশ করে অপরাধীদরে কঠোর শা¯ত্মির মুখোমুখি করতে হব।ে ২. র্ধম অবমাননার বরিম্নদ্ধে সুনর্দিষ্টি আইন করতে হবে এবং সইে আইনরে যথাযথ প্রয়োগ করতে হব।ে তাহলে কোন ধরণরে র্ধম অবমাননার ঘটনা ঘটলে জনতা আর সহংিস হয়ে উঠবে না। ৩. রাজনতৈকি নতো ও মন্ত্রীদরে অতি বাচাল প্রবণতা বন্ধ করতে হব।ে মানুষরে আবগে-অনুভূতরি জায়গায় আঘাত করে মšত্মব্য করার প্রবণতা অবশ্যই বন্ধ করতে হব।ে তারই প্রাথমকি পদড়্গপে হসিবেে অতি বাচাল তথ্য প্রতমিন্ত্রীকে মন্ত্রীসভা থকেে বহষ্কিার করতে হব।ে ৪.দশেরে স্বাভাবকি রাজনতৈকি পরবিশে ফরিাতে বরিোধী দলগুলোর ওপরে দমন-পীড়ন বন্ধ করতে হব।ে আটক রাজনতৈকি বন্দীদরে মুক্তি দয়িে সুস্থ স্বাভাবকি রাজনতৈকি পরবিশে নশ্চিতি করতে হব।ে ৫.শাসন ব্যবস্থায় জনতার মতামতরে প্রতফিলন ঘটাতে এবং সহনশীল, বহুদলীয়, মানবকি সমাজ প্রতষ্ঠিায় সুষ্ঠু ও শাšত্মির্পূণ নর্বিাচন আয়োজন করতে হব।ে ৬.বাংলাদশেরে আইন শৃঙ্খলা বাহনিীগুলোর রাজনতৈকি ব্যবহার বন্ধ করে এবং তাদরে নয়িোগে রাজনতৈকি হ¯ত্মড়্গপে বন্ধ করে বাহনিীগুলোকে পশোদারত্বিরে ভত্তিতিে গড়ে তুলতে হব।ে ৭.গণবড়্গািভে নয়িন্ত্রণে গুলি করার মতো চরমপন্থা অবলম্বন করার প্রবণতা সর্ম্পূণ বন্ধ করতে হব।ে ৮.ড়্গতগ্রি¯ত্ম মন্দরি ও সংখ্যালঘুদরে ড়্গতগ্রি¯ত্ম ঘরবাড়ী সরকারীভাবে নর্মিাণ করে দতিে হবে এবং চাঁদপুরে পুলশিরে গুলতিে যারা নহিত হয়ছেনে, তাদরে পরবিারসহ ড়্গতগ্রি¯ত্ম সকল ব্যক্তি ও পরবিারকে যথাযথ ড়্গতপিূরণ দতিে হব।ে ৯.দশেরে একশ্রণেীর মডিয়িা, রাজনতৈকি সংগঠন ও তথাকথতি সুশীল সমাজ এই ধরণরে ঘটনায় যভোবে র্ধমকে কন্দ্রে করে একচোখা বয়ান দাড় করায়, তা বন্ধ করতে হব।ে বাঙ্গালী জাতরি ইতহিাস ও মন¯ত্মত্ত্ব বরিোধী তাদরে এই ধরণরে বয়ান নর্মিাণরে পছেনে কোন দুরভসিন্ধি আছে কনিা তা খতয়িে দখেতে হব।ে ১০. প্রতবিশেী দশেকে বাংলাদশেরে অভ্যšত্মরীণ বষিয়ে নাক না গলাতে সরকাররে পড়্গ থকেে কঠোর র্বাতা দতিে হব।ে

লখিতি বক্তব্যে বলা হয় , করোনা পরস্থিতিি মোকাবলিায় সরকাররে র্ব্যথতার প্রভাবে দশেে র্সাবকি দারদ্র্যিরে হার (আপার প্রোর্ভাটি রটে) বড়েে ৪২ শতাংশে দাঁড়য়িছে,ে যা আগরে তুলনায় প্রায় দ্বগিুণ।

বআিইডএিস-এর সাম্প্রতকি এক প্রতবিদেনে উঠে এসছে,ে করোনায় বাংলাদশেে ১ কোটি ৬৪ লাখ মানুষ নতুন করে দারদ্রিসীমার নচিে নমেে গছে।ে আগরে হসিাব যোগ করে গরবি মানুষরে এই সংখ্যা ছাড়য়িছেে ৫ কোটরি বশে।ি অন্যদকিে ক্যাবরে প্রতবিদেনে দখো যাচ্ছে ২০২০-২১ র্অথবছরে মানুষরে জীবনযাত্রার ব্যয় বড়েছেে প্রায় ৬.৮৮%। গত ৩ বছররে ভতের এটি র্সবােচ্চ। আর ট্রডেংি র্কপােরশেন অব বাংলাদশেরে (টসিবি)ি মত,ে গত একমাসে নত্যিপ্রয়োজনীয় পণ্যরে দাম বড়েছেে প্রায় ১৯.৬৪%। একদকিে করোনার কারণে মানুষরে আয় কমে যাওয়া, অন্যদকিে দ্রব্যমূল্যরে এই সীমাহীন বৃদ্ধতিে সাধারণ মানুষ দশিহোরা।

পীর সাহেব বলনে, নিত্যপণয়েড় দাম নয়িন্ত্রণ করা সরকাররে প্রধান কাজগুলোর একট।ি কন্তিু র্বতমান পরস্থিতিি বল,ে সরকার এই দায়ত্বি পালনে সর্ম্পূণ র্ব্যথ হয়ছে।ে এখানে কয়কেটি  বষিয় গুরম্নত্বর্পূণ-

১. পণ্যরে প্রাক উৎপাদন ধাপসমূহ এবং উৎপাদতি পণ্যরে বাজারজাত করার প্রক্রয়িার মধ্যে একদল মধ্যস্বত্ত্বভোগীর মাধ্যমে পণ্যরে দাম বাড়ায়। ফলে উৎপাদক ও ভোক্তা উভয়ই ড়্গতগ্রি¯ত্ম হয়। এই মধ্যসত্ত্বভোগী শ্রণেীর প্রায় পুরোটাই রাজনতৈকি দলরে নতো র্কমী। উৎপাদক ও ভোক্তার মাঝে পণ্যরে দামরে র্পাথক্য নয়িে সুনর্দিষ্টি আইন করতে হব।ে ২. আমদানকিৃত পণ্যরে দাম নয়িে কারসাজি বন্ধে টসিবিকিে আধুনকিায়ন ও দড়্গ করে তুলতে হব।ে কাস্টমস ও শুল্ক বভিাগকে র্দুনীতমিুক্ত করতে হব।ে ৩. দশেরে নীতি নর্ধিারণে ব্যবসায়ীদরে আধক্যি কমাতে হব।ে ৪. পরবিহন খাতে মাসে ৩০০ কোটি টাকার বশেি চাঁদাবাজি হয়। যার প্রভাব গয়িে সরাসরি ভোক্তার ওপরে পর।ে

পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, একটি শক্তশিালী ও আত¥র্মযাদা সম্পন্ন নর্বিাচন কমিশন দেশের সংবধিান রড়্গা ও জনতার সরকার প্রতষ্ঠিায় সবচয়েে বশেি ভূমকিা রাখতে পার।ে নর্বিাচন কমশিনকে ব্যবহার করইে ইতহিাসরে সবচয়েে কলঙ্কময় নর্বিাচন করা হয়ছে।ে গত কয়কেটি নর্বিাচনে ভোটার উপস্থতিি চোখে আঙ্গুল দয়িে দখেয়িছেে য,ে এই নর্বিাচন কমশিন কতটা নর্মিমভাবে বাংলাদশেরে নর্বিাচন ব্যবস্থাকে হত্যা করতে সড়্গম হয়ছে।ে চলতি ইসি ও তাদরে নয়িোগর্কতারা যে ইতহিাসরে কালো স্থানইে থাকবনে, তা বলাই বাহুল্য।

তিনি বলেণ, র্সাচ কমটিরি মাধ্যমে ইসি নয়িোগ করা হবে বলে শোনা যাচ্ছ।ে র্সাচ কমটিরি বাছাই করা ইসি যে কত জঘন্য হতে পারে তার নজীর তো এখনো চলমান। আসলে রাজনতৈকি সদচ্ছিা না থাকলে এসব র্সাচ কমটিি আর আইন কোনটাই ফল দবেে না।

এজন্য সকল দলরে মতামতরে ভত্তিতিে একটি র্সাবজনীন ইসি গঠন অথবা প্রতনিধিত্বিশীল দলগুলো থকেে একজন করে নয়িে একটি র্সবদলীয় ইসি গঠন করম্নন। অন্যথায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদশে অবস্থার প্রড়্গেেতি জোরালো আন্দোলন গড়ে তুলব,ে তারপরওে জনতার ভোট নয়িে আর কোন ছলচাতুরী করতে দয়ো হবে না।

তিনি বলেন, দ্বিতীয় দফা ইউপি নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদশে দেশজুড়ইে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে কন্তিু সরকারদলীয় স্থানীয় মা¯ত্মানরা মনোনয়ন র্ফম জমাদানে বাঁধা, র্প্রাথীদরে বাড়-িঘরে হামলা, ভয়-ভীতি দখোনোসহ নানা রকম মা¯ত্মানি করইে যাচ্ছ।ে এখানে মানুষরে মতামতরে ভত্তিতিে নতো নর্বিাচনে অংশ নয়ো আমাদরে অধকিার। নর্বিাচন কমশিনকে বলবো, পাপরে খাতা অনকে ভারি হয়ছে।ে শষেকালে এই নর্বিাচনকে সুষ্ঠু করে সইে পাপ খানকিটা মোচন করে যান।

পীর সাহেব চরমোনাই বলনে, মামলা হলো অপরাধী সংশোধনের আইনি প্রক্রিয়া র্বতমানে মামলা ভিন্নমত দমনরে হাতয়িারে পরণিত হয়ছে। চলতি ঘটনাকে কন্দ্রে করেও বহু মামলা হয়েছে এবং তাতে হাজার-হাজার বনোমী আসামী দখোনো হয়ছে।ে কোন নরিীহ মানুষকে যাতে হয়রানী করা না হয়। দশেে বভিন্নি কারাগারে শত শত ওলামায়ে কেরাম আটক অবস্থায় আছেন। মামলা মাথায় নিয়ে ্দিন কাটাচ্ছন হাজার হাজার ওলামা। যাদরে বরিম্নদ্ধে সুনর্দিষ্টি অপরাধরে প্রমাণ নাই, এমন ওলামা ও রাজনতৈকি বন্দদিরে অবলিম্বে মুক্তি দনি এবং মামলা প্রত্যাহার করম্নটীণতিনি বলনে, বাংলাদশেে বাক স্বাধীনতা হরণরে জন্য তথ্য প্রযুক্তি আইনরে যথচ্ছো রাজনতৈকি ব্যবহার র্সব-মহলে উদ্বগে তরৈি করছে।ে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনরে কন্দ্রেীয় সভাপতি নুরম্নল করীম আকরাম এবং ঢাকা মহানগর উত্তর প্রচার সম্পাদক গয়িাস উদ্দনি পরশরে বরিম্নদ্ধওে এ আইনে ভত্তিহিীন একটি মামলা করা হয়ছে।ে অবলিম্বে মামলা প্রত্যাহার করতে হব।ে

র্কমসূচী:- আগামী ২৭ অক্টোবর দশেরে চলমান সংকট ও তা থকেে উত্তরনরে লড়্গে দশেরে র্সব-মহলরে র্শীষস্থানীয় পীর-মাশায়খে, বুদ্ধজিীবী, রাজনীতবিদি, পশোজীবী ও সমাজর্কমীদরে সাথে মতবনিমিয় অনুষ্ঠতি হব,ে ইনশাআলস্নাহ।

র্বাতাপ্ররেক - আহমদ আবদুল কাইয়ূম, ০১৭১১৪৬২৪৩২